Search

ভালবাসা দিবস হলো, চুমু দিবস হলো, এর পরের দিবসটা নির্ঘাত সেক্স দিবস! – তসলিমা

চুমু দিবস : ‘সমাজের চোখ রাঙানো অমান্য করে, যাকে পছন্দ তার সঙ্গে, সে যদি রাজি থাকে, নির্দ্বিধায় সেক্স টেক্স কর।’

চুমু দিবস

তমলিমা নাসরীন

ঢাকা ম্যাগাজিনের পাঠকদের জন্য তসলিমা নাসরিনের ফেসবুক স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলঃ

ঘুম থেকে উঠেই শুনলাম আজ চুমু দিবস। তো কাকে চুমু খাব আজ? চুমু খাওয়ার আমার আছে এক বেড়াল। বেড়ালের মেজাজ মর্জি ভালো থাকলে তার ঠোঁটে আজ চুমু খাওয়া যেতে পারে বৈকি।আজকাল সবকিছু নিয়ে দিবস টিবস হচ্ছে। মা বাপ নিয়ে হয়ে গেছে, ভাই বোন কাকা মামা ফুপি খালা নিয়ে হয়েছে কিনা এখনো জানি না। কী নিয়ে দিবস হয়নি তা-ই হয়ত একদিন গবেষণার বিষয় হবে।

ভালবাসা দিবস হলো, চুমু দিবস হলো, এর পরের দিবসটা নির্ঘাত সেক্স দিবস! সেক্স দিবসটা খুব জরুরি। কত মানুষ জীবনের পুরোটা বা বেশির ভাগ সময় সেক্স বিহীন কাটিয়ে দেয়।

সমাজের চোখ রাঙানো অমান্য করে, যাকে পছন্দ তার সঙ্গে, সে যদি রাজি থাকে, নির্দ্বিধায় সেক্স টেক্স কর। বনোবো হয়ে যাও সবাই। বনোবোদের মত আমোদ ফুর্তিতে কাটাও। বনোবোরা প্রচন্ড সেক্স ভালবাসে। মানুষ তো সারাক্ষণ সেক্স নিয়ে ভাবে। বনোবোরা ভাবাভাবিতে নেই, তারা করে দেখিয়ে দেয়।সেক্স জিনিসটা বনোবোদের ট্যাবু নয়, মানুষই সেক্সকে ট্যাবু বানিয়েছে।
পোড়া কপাল আর কাকে বলে! বনোবোরা সেক্স করেই নিজেদের মধ্যে ঝগড়া লড়াই বন্ধ করে। মানুষের সঙ্গে বনোবোর ডি এন এ র সবচেয়ে বেশি মিল, ৯৮.৪%. অথচ বনোবোরা মানুষের মত মোটেও বর্বর নয়, যুদ্ধবাজ নয়, রীতিমত শান্তিপ্রিয় জাত। মানুষ যে কবে বনোবোর কাছ থেকে আচার আচরণ শিখবে!

 আরো পড়ুন : ১)   মিস ইউনিভার্স ২০১৪ (২০১৫)   

২) কম ঘুমানোর লক্ষন ও ক্ষতিকর বিষয়ের প্রতিকার

লাইক দিন এখানে ঢাকা ম্যাগাজিন

 

comments