Search

পুলিশের কষ্ট যেগুলো সরকার, সিনিয়র ও জনগন বোঝেনা

পুলিশ অধ্যাদেশ ও সরকারের আত্মঘাতি সিদ্ধান্ত আন্তর্জাতিক শ্রম আইন অনুসারে কোন জবই ৮ ঘন্টার বেশি হবেনা, তবে যদি শ্রমিক/কর্মচারি সেচ্ছায় করতে রাজি থাকে তাহলে তাকে রেগুলার বেতন থেকে দেড় গুন বেতন দিতে হবে অতিরিক্ত সময়ের জন্য। এখন একটু ভাবুনতো পুলিশ কয়ঘন্টা ডিউটি করে? ১২ ঘন্টা অন স্পট, যাতায়াত সহ ১৩ ঘন্টা লাগে, প্রস্তুতি নিতে আরো এক ঘন্টা লাগে। অতিরিক্ত ৪/৬ ঘন্টার জন্য দেড়গুনতো দুরের কথা একটি পয়সাও পায়না। একজন গার্মেন্টস কর্মীও সেটা পায়। পুলিশ পায়না। আসলে কি আর বলব এরাতো পুলিশ।
★★★পুলিশের কষ্টের কথা বিবেচনা করে এদের ওভারটাইম বেতন দেওয়া হোক ★★★

একজন ব্যাংকারের সাথে যদি তুলনা করিঃ
ব্যাংকার ৯ টা থেকে ৫ টা ডিউটি করে, পুলিশ করে ১২ ঘন্টা। ব্যাংকারের ছুটি সপ্তাহে দুইদিন অর্থাৎ বছরে ১০৪ শুক্র শনি, আর অন্যান্য ঈদ পূঁজা, নানান দিবস মিলিয়ে সর্বমোট ১৫০ দিন বাৎসরিক ছুটি। পুলিশের কয়দিন? ২০ দিন সিএল ছুটি। এর ১০ সারা বৎসরে পেলেও বাকি ১০ ছুটি থাকলেও ওসি সাহেবগন ছুটি ছাড়েননা বা ছাড়তে পারেননা। বলবে অফিসার নাই, ফোর্স নাই ইত্যাদি। তাহলে কি দেখা যায়… একজন ব্যাংকার ছুটি বাদে জব করেন ২১৫ দিন, আর পুলিশ জব করেন ৩৫৫ দিন। পুলিশের ১২ থেকে ১৪ ঘন্টার দিন আর ব্যাংকারের ৮ ঘন্টার দিন। বেতন স্কেল অনুসারে একই।
উপরের কলামটি পড়ে আপনাদের কি মনে হয় পুলিশের বেতন ঠিক আছে?
★★★পুলিশের কমপক্ষে ৬০ দিন ছুটি বাধ্যতামুলক করা হোক★★★

শিক্ষক সমাজ ক্লাস ছেরে আন্দোলন করছে, তাদের জন্য আলাদা আইন নেই কিন্তু পুলিশকে আলাদা আইন দারা আন্দোলনের পথকে রুখে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু মনের ভেতর না বলা কষ্ট।

যারা সিনিয়র অফিসার তাদের বলি, লক্ষ্য করবেন পুলিশের পেট্রল ডিউটি করার গাড়িটি কি পরিমান ব্যাবহার অনুপযোগী, মুলত তাদের কাছে থেকেই জনগন সরাসরি সেবাটা পায়। যার কাছে সেবা পায় তার গাড়ি চলেনা কিন্তু সিনিয়র অফিসারের দামী গাড়ি, ড্রাইভার, বডিগার্ড ইত্যাদি। যে নিজের নিরাপত্তা নিজে দিতে পারেনা সে আবার কিসের পুলিশ বললেন একজন আমেরিকান পুলিশ। যিনি গাড়ি চালাতে পারেনা এমন অদক্ষ লোক কেমনে সিনিয়র? ৩৭ হাজার টাকা বেতন পেয়ে ৫০ হাজার টাকার বাড়ি তার উপর কোটি কোটি টাকার ব্যাংক হিসাব, কেমনে? এরপরও সকল জবাব দিহিতা জুনিয়রের? এটা যেন ইংল্যান্ড শাসনের অবসান হলেও তাদের ভূত রয়ে গেছে। সকল প্রকার চেষ্টা করে যখন কোন নিন্ম পর্যায়ের অফিসার খুব ভাল কিছু করে ফেলে তখন সেটাকে সিনিয়ররা নিজেদের নামে চালিয়ে পিপিএম নিয়ে নেয়। সিনিয়র অফিসার তাদের গাড়িটি অফিসের একদম সিড়ির কাছে নিয়ে আড়াআড়ি করে প্রায় চলাচল বন্ধ করে রাখবে সেখানে আপনি তার আশেপাশের এলাকায় আপনার মোটর সাইকেল রাখলে বংশ উদ্ধার, পারলে একটা সেন্সার দিবে, র্যাবে নাম যাবে তারাতারি। প্যাকেট ছারা এম ই সাইন হয়না, কেন? মিডিয়ার উচিৎ এগুলো তুলে ধরা
★★★ সবার জন্য আইন সমান হওয়া উচিৎ, শাসন নয় মোটিভেট করে এগিয়ে যাওয়া দরকার ★★★

সবাইকে আজকের মত ধন্যবাদ

comments